1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : Editor :
‘স্বাস্থ্য বীমা’র আওতায় আসছে দরিদ্র জনগোষ্ঠী! - বাংলা টাইমস
বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৩:৪৩ অপরাহ্ন

‘স্বাস্থ্য বীমা’র আওতায় আসছে দরিদ্র জনগোষ্ঠী!

নিজস্ব প্রতিবেদক 
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ১৯ জানুয়ারী, ২০২৩
  • ৩৭ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

দরিদ্র মানুষের জন্য বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা পরিষেবার সুবিধার্থে ‘স্বাস্থ্য বীমা’ চালু করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন সংসদ সদস্যরা। তারা বলেন, আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন সরকার দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করলেও সরকারের উচিত দরিদ্রদের জন্য স্বাস্থ্য বীমা বাস্তবায়ন করা।

 

বৃহস্পতিবার (১৯ জানুয়ারি) সংসদে রাষ্ট্রপতির ভাষণ সম্পর্কে আনীত ধন্যবাদ প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে সরকারি দলের সংসদ সদস্যরা এ আহবান জানান।

তারা বলেন, ২০২২ সালটি ছিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্বে বাংলাদেশের উন্নয়নের বছর। বিগত ১৪ বছরে সারাদেশে ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। অথচ বিএনপি স্বাধীনতা বিরোধী জামাত জঙ্গীদের সাথে নিয়ে দেশের উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত করতে ষড়যন্ত্র করছে।

সংসদ সদস্যরা বলেন, বিগত ২০২২ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতু, মেট্রো রেলসহ মেগা প্রকল্পগুলো দেশের মানুষের জন্য উপহার হিসেবে দিয়েছেন। আর বিএনপি তাদের দোসর জামাত-জঙ্গী স্বাধীনতা বিরোধীদের সাথে নিয়ে সরকার পতনের আন্দোলনের নামে দেশ বিরোধী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। দেশের জনগণকে সাথে নিয়ে এদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।

গত ৫ জানুয়ারি সংবিধান অনুযায়ি বছরের প্রথম অধিবেশনের প্রথম দিনে সংসদে রাষ্ট্রপতি এ ভাষণ দেন। রীতি অনুযায়ি এ ভাষণ সম্পর্কে চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী ধন্যবাদ প্রস্তাব উত্থাপন করেন। এ প্রস্তাবটি সমর্থন করেন সরকারি দলের সদস্য শহীদুজ্জামান সরকার।

ধন্যবাদ প্রস্তাবের ওপর আলোচনার নবম দিনে আজ অংশ নেন সরকারি দলের সদস্য মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম বীর উত্তম, আ. ফ. ম. রুহুল হক, মো. জিল্লুল হাকিম, আব্দুস সালাম মোর্শেদী, তাহজীব আলম সিদ্দিকী, মাহফুজুর রহমান, এম এ মতিন, মো. আফতাব উদ্দিন সরকার, তানভীর শাকিল জয়, আদিবা আনজুম মিতা ও জাসদের শিরীন আখতার।

তারা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের যোগাযোগ, আর্থ-সামাজিক, শিক্ষা, যুব ও ক্রীড়া, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি)সহ বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড তুলে ধরেন।

আলোচনায় অংশ নিয়ে সরকারি দলের সদস্য মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম বীর উত্তম বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার স্বাস্থ্য খাতের জন্য বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছে, সরকারের উচিত দরিদ্রদের জন্য স্বাস্থ্য বীমা চালু করা যাতে নিম্ন আয়ের মানুষ এবং চরম দরিদ্র মানুষ গুরুতর রোগের জন্য সহজে বিনামূল্যে চিকিৎসা পায়।’

তিনি বলেন, দরিদ্র লোকেরা সাধারণত জটিল রোগের চিকিৎসার খরচ বহন করতে পারে না কারণ তাদের এত ব্যয়বহুল চিকিৎসার জন্য সর্বস্ব হারাতে হয়।

আ ফ ম রুহুল হক বলেন, ‘আমরা আশা করি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ২০৪১ সালের নির্ধারিত সময়সীমার আগেই দেশ জঙ্গি ও দুর্নীতিমুক্ত স্মার্ট বাংলাদেশে পরিণত হবে।’

জাসদের সদস্য শিরীন আখতার বলেন, ‘বিএনপি-জামাত চক্র চলমান উন্নয়নে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির অপচেষ্টা করছে, আমরা তাদের জঘন্য ষড়যন্ত্রের কারণে পাকিস্তানের সঙ্গে ৫০ বছরের দীর্ঘ সমস্যার সমাধান করতে পারিনি।’

সরকারি দলের সদস্যরা বলেন, আজকে যখন বাংলাদেশ বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেলে পরিণত হয়েছে। তখন দেশকে টেনে ধরার চেষ্টা করা হচ্ছে। দেশে তারা হত্যা, ক্যু ও ষড়যন্ত্রের রাজনীতি কায়েম করেছিল। সমগ্র বাংলাদেশের আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের উপর অত্যাচার নির্যাতন করেছে। তারাই এখন দেশে মানবাধিকারের কথা বলছে। আইনের শাসনের কথা বলছে। দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বলেই এতিমের টাকা আত্মসাৎ করার জন্য সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া আজ দন্ডিত হয়ে কারাবরণ করছেন।

তারা বলেন, ‘আমরা আশা করি বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ২০৪১ সালের নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে বাংলাদেশ একটি স্মার্ট এবং একটি সমৃদ্ধ দেশ হবে।’

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায় সিসা হোস্ট