1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : Editor :
ওবায়দুল কাদেরের হ্যাটট্রিক, নাকি নতুন মুখ - বাংলা টাইমস
বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ০৬:৫০ পূর্বাহ্ন

ওবায়দুল কাদেরের হ্যাটট্রিক, নাকি নতুন মুখ

বিশেষ প্রতিবেদক
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ১ নভেম্বর, ২০২২
  • ৮৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

আওয়ামী লীগের সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা হওয়ার পর থেকেই জল্পনা শুরু হয়েছে দলের ভেতরে-বাইরে। কে হচ্ছেন দলের পরবর্তী সাধারণ সম্পাদক। দলের তৃণমূল নেতা-কর্মীদের মধ্যেই আলোচনা চলছে সাধারণ সম্পাদক ঘিরেই। অলোচনা চলছে সাধারণ মানুষের মধ্যেও।

 

এ নিয়ে আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারক নেতারা মুখ খুলতে চাচ্ছেন না। সবাই তাকিয়ে রয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সবুজ সংকেতের দিকে। কে হচ্ছেন আওয়ামী লীগের পরবর্তী সাধারণ সম্পাদক।

আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে আনুষ্ঠানিকভাবে কেউ সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থী হন না। জাতীয় কাউন্সিলে কাউন্সিলরদের মতামতের ভিত্তিতেই সাধারণ সম্পাদক নির্বাচন করা হয়। তারাই নাম প্রস্তাব ও সমর্থনের মাধ্যমে নতুন সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করেন।

আলোচনা-সমালোচনা যাই হোক না কেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের পদে এগিয়ে রয়েছেন বর্তমান সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। সাধারণ সম্পাদকের পদে হ্যাটট্রিক করতে পারেন তিনি। তার সম্ভাবনাই সবচেয়ে বেশি। এই মতের বাইরে থাকা নেতাকর্মী মনে করছেন, আওয়ামী লীগের ইতিহাসে কোনো নেতাই দু’বারের বেশি সাধারণ সম্পাদক পদে থাকার নজির নেই। ফলে নতুন মুখ আসতে চলেছে।

দলের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে সভাপতিমণ্ডলীর অন্যতম সদস্য কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাকের নাম আলোচনায় রয়েছে। এ ছাড়া সাধারণ সম্পাদক পদে আলোচনায় রয়েছেন সভাপতিমণ্ডলীর অন্যতম দুই সদস্য অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক এবং আবদুর রহমান। এ দুই নেতা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। এর মধ্যে অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক ছিলেন আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান।

সাধারণ সম্পাদক পদে সম্ভাব্য নেতাদের তালিকায় আরও রয়েছেন দলের চার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল-আলম হানিফ, শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম ও সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম। এর মধ্যে আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি ও মির্জা আজম যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

আগামী ২৪ ডিসেম্বর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আওয়ামী লীগের ২২তম জাতীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হবে। তিন বছর মেয়াদি আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের কর্মকর্তা এবং সদস্যের সংখ্যা ৮১। এরমধ্যে মূলত সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক পদই কাউন্সিলের আলোচনার পুরোভাগে থাকে। তবে দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা এবারও সভাপতি পদে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিকল্প কিছু ভাবছেন না।

গত ২০১৯ সালের ২০ ও ২১ ডিসেম্বর ২১ তম জাতীয় সম্মেলন হয়। সেখানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সভাপতি ও ওবায়দুল কাদের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে পুনঃনির্বাচিত হন।

বঙ্গবন্ধু হত্যার ছয় বছর পর বিদেশে অবস্থানকালে ১৯৮১ সালে জাতির পিতার বড় মেয়েকে সভাপতি হিসেবে নির্বাচন করে আওয়ামী লীগ। এরপর তিনি দেশে ফেরেন। ৪১ বছর ধরে তিনি এখন দলের নেতৃত্বে। বাংলাদেশের ইতিহাসে এর আগে কেউ এত বেশি সময় ধরে দলের নেতৃত্বে ছিলেন না।

আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্রে তিন বছর পর পর সম্মেলন করে নতুন মুখ বেছে নেয়ার বিষয়টি উল্লেখ আছে। প্রতিটি সম্মেলনেই শেখ হাসিনাকে নেতা হিসেবে বেছে নিয়েছেন কাউন্সিলররা। এর আগের দুটি সম্মেলনের মতো এবারও শেখ হাসিনা দলের নেতৃত্বে অন্য কাউকে বেছে নিতে কাউন্সিলরদেরকে পরামর্শ দিয়েছেন।

সম্মেলনের সিদ্ধান্ত নেয়ার পাশাপাশি আগামী ৪ ডিসেম্বর চট্টগ্রামের পলো গ্রাউন্ডে জনসভা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ক্ষমতাসীন দল। সেখানে সভাপতিত্ব করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

২০২০ সালের মার্চে দেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের পর এটি হবে আওয়ামী লীগ প্রধানের দ্বিতীয় জনসভা। গত ২৫ জুন পদ্মা সেতু উদ্বোধনের দিন তিনি জনসভায় অংশ নিয়েছিলেন।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায় সিসা হোস্ট