1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : Editor :
শরীফ হত্যা মামলা/ তিন ভাইয়ের মৃত্যুদণ্ড ও বাবার যাবজ্জীবন - বাংলা টাইমস
বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০৮:৪১ অপরাহ্ন

শরীফ হত্যা মামলা/ তিন ভাইয়ের মৃত্যুদণ্ড ও বাবার যাবজ্জীবন

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ৫৯৭ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলার চানপুর গ্রামের আলোচিত শরীফ খাঁ-(৫০) হত্যা মামলার তিন আসামীকে ফাঁসি ও ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা এবং অপর এক আসামীকে যাবজ্জীবন ও ২০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে আদালত। সোমবার (১২ সেপ্টেম্বর) দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ শারমিন নিগার এই রায় প্রদান করেন।

 

রায়ে ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত আসামীরা হলেন, আখাউড়া উপজেলার আখাউড়া উত্তর ইউনিয়নের চাঁনপুর গ্রামের উত্তর পাড়ার আমানত খাঁ প্রকাশ আম খাঁর ছেলে জাকির খাঁ-(৪০), মাহবুব খাঁ-(৩০) ও গাজী খাঁ-(২৪)। যাবজ্জীবন দন্ড পাওয়া আসামী হলেন ফাঁসির একই এলাকার মৃত আলি নোওয়াজ খাঁর ছেলে আমানত খাঁ প্রকাশ আম খাঁ-(৬৫)। তিনি ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত তিন ভাইয়ের পিতা।

রায় ঘোষনাকালে আমানত খাঁ প্রকাশ আম খাঁ আদালতে উপস্থিত ছিলেন। বাকীরা পলাতক। ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত তিনভাই বর্তমানে বিদেশে অবস্থান করছে বলে জানা গেছে।

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরনে জানা গেছে, বাড়ির সীমানা নিয়ে বিরোধের জের ধরে আসামীদের সাথে শরীফ খাঁর পরিবারের বিরোধ চলে আসছিলো। স্থানীয় সর্দারগন এনিয়ে একাধিকবার সালিশ করে বিষয়টি নিষ্পত্তি করলেও আসামীরা সালিশের রায় অমান্য করে।

ঘটনার দিন ২০১৫ সালের ৬ আগষ্ট সকাল আনুমানিক ৮টার দিকে আসামীরা সকালে আসামীরা দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে শরীফ খাঁর বাড়ির একটি গাছ কাটতে থাকলে শরীফ খাঁ এতে বাঁধা দেয়। এতে আসামীরা ক্ষিপ্ত হয়ে শরীফ খাঁ, তার ছেলে রবিন খাঁ-(২২), রাসেল খাঁ-(১৮), স্বজন মোশারফ খাঁ-(৪৫), বাদশা খাঁ-(২৫) ও আছিয়া বেগম-(৭৫) কে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে বেদম মারধোর করে। আসামীরা চাইনিজ কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে শরীফ খাঁকে মারাত্মক জখম করে চলে যায়।

পরে স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে প্রথমে আখাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসেন।ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসকগন শরীফ খাঁকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করলে ঢাকা নেয়ার পথে নরসিংদী এলাকায় পৌছলে এ্যাম্বুলেন্সের মধ্যেই শরীফ খাঁ মারা যান।

এ ঘটনায় শরীফ খাঁর স্ত্রী মাজেদা বেগম প্রকাশ লিপি ওইদিন রাতেই জাকির খাঁ, মাহবুব খাঁ, গাজী খাঁ, আমানত খাঁ প্রকাশ আম খাঁ ও আমির খাঁর নাম উল্লেখপূর্বক অজ্ঞাতনামা আরো ৫/৬ জনের বিরুদ্ধে আখাউড়া থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

থানা থেকে মামলাটি আখাউড়া থানার এস.আই মোঃ আকরামুল হককে তদন্ত করার জন্য দেয়া হয়। তদন্তকালেই পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে মামলার আসামী আমির খাঁ-(২৮) মারা যায়।

দীর্ঘ তদন্ত শেষে ২০১৬ সালের ২৪ এপ্রিল এস.আই. মোঃ আকরামুল হক মোঃ জাকির খাঁ, মাহবুব খাঁ, গাজী খাঁ ও আমানত খাঁ প্রকাশ আম খাঁর বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দায়ের করেন।

পরে আদালত মামলার ১১জন স্বাক্ষী ৩ জন সাফাই স্বাক্ষীর স্বাক্ষ্য গ্রহন শেষে সোমবার দুপুরে মামলার রায় ঘোষনা করেন। রাষ্ট্রে পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন আদালতের ভারপ্রাপ্ত পিপি অ্যাডভোকেট আজাদ রাকিব আহমেদ প্রকাশ তুরান ও আসামী পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট মোঃ শাহ পরান।

এ ব্যাপারে মামলার বাদি ও নিহত শরীফ খাঁর স্ত্রী মাজেদা বেগম প্রকাশ লিপি বলেন, রায়ে আমরা সন্তুষ্ট। আমরা আদালতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তিনি বলেন, ফাঁসির দন্ড পাওয়া তিন আসামী বর্তমানে বিদেশে অবস্থান করছে। আমি ফাঁসির দন্ড পাওয়া আসামীদের দেশে ফিরিয়ে এনে দন্ড কার্যকর করার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে দাবি জানাই।

এ ব্যাপারে মামলার রাষ্ট্রে পক্ষের আইনজীবী ও ভারপ্রাপ্ত পিপি অ্যাডভোকেট আজাদ রাকিব আহমেদ প্রকাশ তুরান বাংলা টাইমসকে বলেন, এই রায়ে আমরা সন্তুষ্ট। এই রায়ে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

অপর পক্ষে আসামী আমানত খাঁ প্রকাশ আম খাঁর পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মোঃ শাহ পরান বলেন, রায়ে আমরা সংক্ষুব্ধ । আমরা উচ্চ আদালতে আপিল করবো। তিনি বলেন, আমি আমানত খাঁর পক্ষের আইনজীবী। তিনি বলেন, ফাঁসির দন্ডপাওয়া আসামীরা বর্তমানে বিদেশে আছেন। তারা বিদেশ থেকে ফিরে এলে তাদের পক্ষেও আপিল করবো।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায় সিসা হোস্ট