1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : Editor :
জেলা পরিষদ নির্বাচন/ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আলোচনায় ৩ প্রার্থী  - বাংলা টাইমস
বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০৭:৩০ অপরাহ্ন

জেলা পরিষদ নির্বাচন/ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আলোচনায় ৩ প্রার্থী 

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ৩ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ৮৯২ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আগামী ১৭ অক্টোবর অনুষ্ঠিতব্য জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আলোচনায় আছেন তিনজন প্রার্থী। এরা সবাই আওয়ামীলীগ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী। আওয়ামীলীগ ছাড়া চেয়ারম্যান পদে অন্য কোন দলের প্রার্থীদের নাম আলোচনায় নেই।

 

চেয়ারম্যান পদে মানোনয়ন প্রত্যাশীরা হলেন, জেলা পরিষদের বর্তমান প্রশাসক (জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান) ও জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সহ-সভাপতি শফিকুল আলম, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর সভার সাবেক চেয়ারম্যান যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা আল-মামুন সরকার ও জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর সভার সাবেক মেয়র মোঃ হেলাল উদ্দিন। তবে দলীয় নেতা-কর্মীরা জানান, শেষ পর্যন্ত চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীর সংখ্যা আরো বাড়তে পারে।

চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন প্রত্যাশীরা ইতিমধ্যেই দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার আশায় দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে লবিং করাসহ নির্বাচনী এলাকার ভোটারদের সাথে যোগাযোগ শুরু করেছেন।

দলীয় নেতা-কর্মীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, এবারের জেলা পরিষদ নির্বাচনে হেভিওয়েট প্রার্থী হিসেবে বিবেচিত হতে পারেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ও যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা আল-মামুন সরকার।

দলীয় নেতা-কর্মীদের মাঝেও তাঁকে নিয়ে বেশ আগ্রহ রয়েছে। আল-মামুন সরকার দলের তৃনমূল পর্যায় থেকে উঠে আসা একজন নেতা। তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজ ছাত্র-ছাত্রী সংসদের সাবেক ভিপি, ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান ও সমাজসেবায় তিনি রাষ্ট্রীয় সম্মাননা পেয়েছেন। বর্তমানে তিনি জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন।

অপর চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ হেলাল উদ্দিন ইতিমধ্যেই প্রচার-প্রচারণা শুরু করেছেন। মোঃ হেলাল উদ্দিন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক, তিনি জেলা যুবলীগের সাবেক আহবায়ক ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর সভার সাবেক মেয়র। বর্তমানে তিনি জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। ইতিমধ্যেই তিনি ভোটারদের সাথে যোগাযোগ শুরু করেছেন। দলের মধ্যেও তাঁকে নিয়ে বেশ আলোচনা আছে।

জেলা পরিষদের বর্তমান প্রশাসক শফিকুল আলম গত জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী সৈয়দ এ.কে.এম এমদাদুল বারীকে (বর্তমানে প্রয়াত) হারিয়ে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে ৫ বছরের মেয়াদ শেষ হলে তিনি পুনরায় জেলা পরিষদের প্রশাসক নিযুক্ত হন।

জেলা পরিষদের আগামী নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে তিনি দলের কাছে মনোনয়ন চাইবেন। ইতিমধেই তিনি প্রচার-প্রচারণা শুরু করেছেন।
বিগত জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীকে হারিয়ে জয়লাভ করায় তিনি বেশ চাঙ্গা। দলীয় কোন কর্মকান্ডে তাকে দেখা না গেলেও ভেতরে ভেতরে তিনি অনেকের সাথেই যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন।

এদিকে জেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রতিটি উপজেলা থেকে সাধারণ আসনে একজন সদস্য ও তিনটি উপজেলা মিলিয়ে একটি সংরক্ষিত আসনে সদস্য নির্বাচনের বিধান করায় প্রতিটি উপজেলাতেই সদস্য পদে ৫/৬জন করে প্রার্থী মাঠে নেমেছেন।
সদস্য পদের প্রার্থীরাও মাঠ পর্যায়ে যোগাযোগ শুরু করেছেন। লবিং করছেন নিজ দলের বিভিন্ন পর্যায়ে।

এ ব্যাপারে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী ও বর্তমান জেলা পরিষদ প্রশাসক শফিকুল আলম বাংলা টাইমসকে বলেন, আমাকে দলের বিদ্রোহী প্রার্থী বলা হয়, যা মোটেও ঠিক না। কারণ জেলা আওয়ামীলীগের বর্তমান কমিটিতে আমার কোন পদ নেই। আমি জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ছিলাম। আমাকে দলের কমিটি থেকে বাদ দেয়া হলেও আমি আওয়ামীলীগের লোক। গত নির্বাচনে আমি চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছি। বর্তমানে আমাকে প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, আগামী নির্বাচনেও চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হবো। গত ৫ বছর ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় অনেক কাজ করেছি। আশা করি সকলের সহযোগিতায় আমি আবারো নির্বাচিত হতে পারবো।

এ ব্যাপারে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী ও জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোঃ হেলাল উদ্দিন বাংলা টাইমসকে বলেন, দলের কাছে মনোনয়ন চাইব। দল মনোনয়ন দিলে অবশ্যই নির্বাচন করব। তিনি বলেন, মানুষের কল্যানের জন্য রাজনীতি করি। সারাটা জীবন মানুষের জন্য কাজ করতে চাই।

এ ব্যাপারে জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আল-মামুন সরকার বাংলা টাইমসকে বলেন, দলীয় নেতা-কর্মীদের প্রত্যাশা আমি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করি। ‘দল যেটা ভালো মনে করে সেটা করবে। আমাকে মনোনয়ন দেওয়া হলে আমি অবশ্যই নির্বাচন করবো। তবে প্রার্থী মনোনয়ন বিষয়ে কিভাবে বাছাই করা হবে, জেলা থেকে ফরম নিতে হবে কি-না এসবের দলীয় কোনো নির্দেশনা এখনো আমি পাইনি।

উল্লেখ্য, ব্রাহ্মনবাড়িয়া জেলায় ১০০টি ইউনিয়ন, ৯টি উপজেলা ও ৫টি পৌরসভায় জনপ্রতিনিধির সংখ্যা ১৩৯৬ জন। এর মধ্যে ২ জন জনপ্রতিনিধি মৃত্যুতে জেলা পরিষদের নির্বাচনে মোট ভোটার ১৩৯৪ জন।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায় সিসা হোস্ট