1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : Editor :
গণতন্ত্রের মানসকন্যা শেখ হাসিনার কারামুক্তি ও জনপ্রত্যাশা - বাংলা টাইমস
সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১১:৫০ অপরাহ্ন

গণতন্ত্রের মানসকন্যা শেখ হাসিনার কারামুক্তি ও জনপ্রত্যাশা

সুপন রায়
  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ১০ জুন, ২০২২
  • ১৬৮ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্যকন্যা প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার কারামুক্তি ও গণতন্ত্রের মুক্তি দিবস ১১ জুন। তথাকথিত সেনাসমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ভিত্তিহীন, বানোয়াট ও মিথ্যা মামলায় গ্রেফতার হয়ে শেখ হাসিনা ২০০৮ সালের এইদিনে ১১ মাস কারাভোগের পর সংসদ ভবন চত্বরে স্থাপিত বিশেষ কারাগার থেকে মুক্তি পান।

 

২০০৭ সালের ১৬ জুলাই মাইনাস ওয়ান ফর্মুলা কায়েম করার লক্ষ্যে তাকে গ্রেফতার করা হয়। বন্দি থাকা অবস্থায় কারা অভ্যান্তরে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা অসুস্থ হয়ে পড়লে ওই সময় বিদেশে চিকিৎসার জন্য তাকে মুক্তি দেওয়ার দাবি ওঠে বিভিন্ন মহল থেকে। আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ অন্যান্য অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের ক্রমাগত চাপ, আপসহীন মনোভাব ও অনড় দাবির মুখে তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার শেখ হাসিনাকে মুক্তি দিতে বাধ্য হয়।

তার মুক্তির মধ্য দিয়ে এদেশের মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার ফিরে আসে। বিকাশ ঘটে গণতন্ত্র ও উন্নয়নের। তার নেতৃত্বে বাঙালির গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার হয়। সেই থেকেই বঙ্গবন্ধুকন্যা রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা আমাদের গণতন্ত্রের আলোকবর্তিকা।

এর আগে ১৯৮১ সালে দেশে ফেরার পর ১৯৮৩, ১৯৮৫ এবং ১৯৯০ সালেও তিনি রাজনৈতিক কারণে কারাবরণ করেন। ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার গঠন করা হয়। অবসান ঘটে বিএনপি-জামায়াত ও সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দুঃশাসনের কাল। একারণে বাংলাদেশ আজ বিশ্বসভার গৌরবান্বিত রাষ্ট্র, যার রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা, যিনি একটানা সাড়ে ১৩ বছর ক্ষমতায় আসীন।

মিথ্যা মামলায় কারাগারে বন্দি করা হলেও শেখ হাসিনার ২০০৭ সালের ৭ মে আমেরিকা থেকে প্রত্যাবর্তন ছিল আমাদের জন্য মঙ্গলকর। ওই বছর ১১ জানুয়ারির পর তার দেশে ফেরার ওপর বিধিনিষেধ জারি করে সামরিক তত্ত্বাবধায়ক সরকার। তাকে রাজনীতি থেকে সরিয়ে দেয়ার সেই চক্রান্ত ব্যর্থ হয়। তিনি দেশে প্রত্যাবর্তন করেন। কিন্তু তাকে রাজবন্দি করার পর সেসময় গণমানুষ তার অনুপস্থিতি গভীরভাবে উপলব্ধি করেছিল; দেশকে নেতৃত্ব শূন্য করার চক্রান্ত স্পষ্ট হয়েছিল। তার সাবজেলের সামনে দাঁড়িয়ে থাকা মানুষের উদ্বেগ, গ্রেফতারের সংবাদ শুনে দেশের বিভিন্ন স্থানে চারজনের মৃত্যুবরণ, বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের উৎকণ্ঠা আপামর জনগোষ্ঠীকে বিহ্বল ও বিক্ষুব্ধ করে তোলে। কারণ সে সময় আদালতের চৌকাঠে শেখ হাসিনা ছিলেন সাহসী ও দৃঢ়চেতা; দেশ ও মানুষের জন্য উৎকণ্ঠিত; বঙ্গবন্ধুর কন্যা হিসেবে সত্যকথা উচ্চারণে বড় বেশি সপ্রতিভ। আসলে ২০০৭ থেকে ২০০৮ পর্যন্ত বাংলাদেশের ইতিহাসে অনেক নাটকীয় ঘটনার জন্ম হয়েছে। সেসময় ‘দুদকে’র দৌড়ঝাপ, ‘মাইনাস টু’র কুশীলবদের উচ্চস্বর ও দাম্ভিকতা, বিচারকদের অসহায়ত্ব আর শেখ হাসিনার জন্য জনগণের বেদনাবোধ অন্যান্য দেশের মানুষকে আলোড়িত করেছিল। শেখ হাসিনার মুক্তির জন্য দেশ-বিদেশে যে জোরাল দাবি উঠেছিল তা ছিল অভূতপূর্ব।

অন্যদিকে, দলের সভাপতিকে গ্রেফতারের পর থেকেই আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রয়াত জিল্লুর রহমানসহ অন্যান্য নেতৃবর্গ বিভিন্নভাবে সরকারের ওপর চাপ প্রয়োগ করেন।

২০০৭ সালের ১১ জানুয়ারি তথা ওয়ান ইলেভেনের পর ২০০৭ সালের ১৫ মার্চ আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা অসুস্থ পুত্রবধূকে দেখতে যুক্তরাষ্ট্র যান। তারপর থেকে দেশের ভেতরে ক্ষমতালোভী-উচ্চাভিলাষী একটি চক্র তাকে দেশে ফিরতে না দেয়ার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়।

প্রথমে একজন ঠিকাদারকে দিয়ে শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা দেয়া হয়। এফআইআরে নাম না থাকা সত্ত্বেও জামায়াত-শিবিরের দায়ের করা একটি হত্যা মামলায় শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে চার্জশিট দেয়া হয়। চাঁদাবাজির বানোয়াট ও কল্পিত মামলাটি দায়ের করা হয় ৯ এপ্রিল। সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলাটি আইনগতভাবে মোকাবিলার জন্য তিনি সফর সংক্ষিপ্ত করে ১৪ এপ্রিলের মধ্যে দেশে ফিরে আসার প্রস্তুতি নেন। সরকারের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের গুরুত্বপূর্ণ উপদেষ্টা মেজর জেনারেল (অব.) আব্দুল মতিন শেখ হাসিনাকে ফোন করে জানিয়েছিলেন, তাড়াহুড়ো করে দেশে ফেরার প্রয়োজন নেই। বলা হয়, তিনি যেন তার প্রয়োজনীয় চিকিৎসা শেষ করে নির্ধারিত সময়ে দেশে ফেরেন।

প্রভাবশালী ওই উপদেষ্টা সাংবাদিকদের আরও বলেন, শেখ হাসিনার মর্যাদা ও সম্মানহানির কোনো কিছুই তার সরকার করবে না। এমনকি প্রেসনোট জারির আগের দিন ১৭ এপ্রিলও তিনি বলেছিলেন, শেখ হাসিনাকে দেশে ফিরতে না দেয়ার কোনো সিদ্ধান্ত তার জানা নেই। আবার প্রেসনোট জারির পর সাংবাদিকরা তার সঙ্গে কথা বলতে গেলে তিনি বলেন, প্রেসনোটের প্রসঙ্গে তার কোনো বক্তব্য নেই। সবচেয়ে বিস্ময়কর বক্তব্য দিয়েছিলেন আইন ও তথ্য উপদেষ্টা ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন। উল্লেখ্য, সরকারি প্রেসনোটে শেখ হাসিনাকে বাংলাদেশের জন্য বিপজ্জনক ব্যক্তি উল্লেখ করা হয় এবং তার দেশে ফিরে আসার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। প্রেসনোট ইস্যু করার পর শেখ হাসিনা বিভিন্ন দেশের মিডিয়ায় সাক্ষাৎকার দেন।

একই দিন রাতে বাংলাদেশের মিডিয়ায় শেখ হাসিনার বক্তব্য প্রকাশে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। ফলে দেশের কোনো টিভি চ্যানেল বা পত্রিকায় বঙ্গবন্ধুকন্যার সেদিনের প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করতে দেয়া হয়নি। সরকার তার ওপর নিষেধাজ্ঞার খবরটি দ্রুত বিভিন্ন সংস্থা ও কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে দেয়।

বিমান ও স্থলবন্দরের ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষকে এ ব্যাপারে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে বলা হয়। অপরদিকে শেখ হাসিনা দেশে ফেরার ব্যাপারে দৃঢ় প্রত্যয় ঘোষণা করার পর উপদেষ্টা জেনারেল মতিন সুর বদলে সাংবাদিকদের বলেন, সরকারের নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও দেশে ফিরলে শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

২২ এপ্রিল ২০০৭ বিশ্বের প্রায় সব শীর্ষস্থানীয় দৈনিক শেখ হাসিনাকে দেশে ফিরতে নিষেধাজ্ঞা-সম্পর্কিত রিপোর্ট ছেপেছিল। ২৫ এপ্রিল ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ শেখ হাসিনাকে বোর্ডিং পাস না দেয়ার জন্য দুঃখ প্রকাশ করে। তারা জানিয়েছিল, বাংলাদেশ এভিয়েশন অথরিটির এক লিখিত নোটিশের কারণেই এই ব্যবস্থা নিতে বাধ্য হয়।

২০০৭ সালের ৩ মে বিশ্বখ্যাত পত্রিকা ‘আউট লুক’-এর সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে শেখ হাসিনা স্পষ্ট করে তার সংগ্রামের উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য ব্যক্ত করেছিলেন। সাংবাদিকদের প্রশ্নে বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, ‘অসাংবিধানিক সরকার আমার জনপ্রিয়তা সহ্য করতে পারছে না। এই দেশে আমার বাবাকে হত্যা করা হয়েছে, মাকে হত্যা করা হয়েছে, আমার ভাইদের ও পরিবারের বেশ কিছু সদস্যকে হত্যা করা হয়েছে। তা সত্ত্বেও আমি আমার দেশে ছিলাম, জনগণের অধিকারের জন্য সংগ্রাম করেছি।’

সবচেয়ে বিস্ময়কর ঘটনা হলো, ইয়াজউদ্দিন-ফখরুদ্দীন সরকার শেখ হাসিনাকে গ্রেপ্তার করে ২০০৭ সালের ১৬ জুলাই। আর বেগম খালেদা জিয়াকে গ্রেপ্তার করা হয় ৫৮ দিন পরে ৩ সেপ্টেম্বর। অথচ জামায়াত-বিএনপি সরকারের অপশাসনের বিরুদ্ধে দেশের সব পেশার মানুষ তখনও ক্ষুব্ধ ও ঐক্যবদ্ধ ছিল।

সে সময় বিএনপি-জামায়াতের রাজনৈতিক অংশীদার মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ ইবরাহিম বলেছিলেন, ‘হাওয়া ভবন দুর্নীতির ওয়ান স্টপ সার্ভিস।’ সেই সরকারের প্রধানকে আগে গ্রেপ্তার না করে শেখ হাসিনাকে গ্রেপ্তার করা হয়। ৫৮ দিন পরে খালেদা জিয়াকে বাধ্য হয়ে গ্রেপ্তার করেছিল; কারণ শেখ হাসিনার মুক্তির দাবিতে সমাজের সর্বস্তরের মানুষ এককাট্টা হয়ে গিয়েছিল। ঢাকা শহরের প্রায় ২৫ লাখ মানুষ শেখ হাসিনার মুক্তির দাবিতে গণস্বাক্ষর করে। তা একসময় সারা দেশে ছড়িয়ে পড়ে। তখন একটা বিষয় স্পষ্ট ছিল যে, অগণতান্ত্রিক সরকারের প্রধান টার্গেট ছিলেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা। অথচ বিএনপি-জামায়াত জোটের অপশাসনের কারণেই বাংলাদেশের রাজনৈতিক ইতিহাসে ওয়ান ইলেভেন এসেছিল।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে নির্মমভাবে হত্যা করার সময় বিদেশে থাকায় প্রাণে বেঁচে যাওয়া দুই কন্যার সংগ্রামী জীবনে শেখ হাসিনা ১৯৮১ সালের ১৭ মে দেশে ফিরে জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠা করার লড়াইয়ে অবতীর্ণ হয়ে দুঃখের কষ্টিপাথরে সহিষ্ণুতার দীক্ষায় উজ্জ্বল হয়ে উঠেছিলেন ২০০৭ সালে কারাগারে নিক্ষিপ্ত হয়ে। পঁচাত্তর থেকে পঁচানব্বই দীর্ঘ ২১ বছর পর সম্ভাবনার বাংলাদেশে তিনি হন প্রধানমন্ত্রী, গণতন্ত্রকে সুপ্রতিষ্ঠিত করেন। তারপর ২০০১ থেকে ২০০৬ পর্যন্ত বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের অমানিশার দুর্যোগে প্রাণ বাঁচানোর দুঃসহ স্মৃতি; অর্থাৎ ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা থেকে বেঁচে যাওয়া জীবন নিয়ে আবার নির্যাতিত জনগণের জন্য রাতদিনের পরিশ্রম- কিন্তু অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের প্রক্রিয়া শুরুর সময় হঠাৎ করে ষড়যন্ত্রের শিকার হয়ে কারাগারে বন্দি হলেন; শুরু হলো আরেক জীবন। সেই জীবনের স্মৃতি আছে তাঁর রচনায়, ‘সবুজ মাঠ পেরিয়ে’ গ্রন্থে।

লেখক: সাংবাদিক ও কলামিষ্ট

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায় সিসা হোস্ট