1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : Editor :
মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ০৭:০০ পূর্বাহ্ন
নোটিশ ::
...Welcome To Our Website...

আ’ লীগের অ্যাসিড টেস্ট, বিএনপির অগ্নিপরীক্ষা

রতন কুমার
  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ১৪ জানুয়ারী, ২০২২
  • ৩০ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

আর একদিন পরই ভোট। আগামী রোববার (১৬ জানুয়ারি) দেশের আলোচিত নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। সিটি কর্পোরেশন গঠন করার পরে এটি তৃতীয় নির্বাচন। এর আগে ২০১১ ও ২০১৬ সালে ভোট হয় এই সিটি কর্পোরেশনের।

 

এই নির্বাচন আওয়ামী লীগের জন্য অ্যাসিড টেস্ট হিসেবে বিবেচিত। দলীয় প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর সামনে বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকার। এদিকে, সিটি ভোটে অংশ নেওয়ায় তৈমূরকে বিএনপির দলীয় পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। তৈমুর ‘কৌশলে’ মাঠে নামায় ছদ্মবেশী বিএনপির জন্য এ নির্বাচন অগ্নিপরীক্ষা।

হেভিওয়েট দুই মেয়র প্রার্থী করছেন অভিযোগ পাল্টা অভিযোগ। কঠোর নিরাপত্তাবলয়ে থাকবে নাসিক নির্বাচনী এলাকা। র‌্যাব, পুলিশের স্পেশাল টিম রবোকপ, বিজিবি, পুলিশ, আর্মড পুলিশ, আনসারসহ সাদা পোশাকের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মাঠে রয়েছে। নৌকার পক্ষে গণজোয়ার দেখছে আওয়ামী লীগ। ভয়ভীতি উপেক্ষা করে মানুষ কেন্দ্রে এলে ভোট বিপ্লব হবে মনে করেন তৈমূর।

১৬ জানুয়ারি ৫ লাখ ১৭ হাজার ৯৪৩ জন ভোটার তাদের প্রতিনিধি বেছে নিতে যাচ্ছেন। ৭ জন মেয়র প্রার্থী, ৩৪ জন সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর ও ১৪৮ জন সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থী লড়ছেন এই ভোটযুদ্ধে।

তবে নির্বাচনের দু’দিন আগে প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তাদের সাথে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের বৈঠক নিয়ে নানা গুঞ্জন শুরু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) রাতে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক ও অন্যরা জেলা প্রশাসকের সঙ্গে দেখা করেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমূরের অভিযোগ, নির্বাচনকে প্রভাবিত করতে আওয়ামী লীগ নেতারা প্রশাসনকে চাপ দিচ্ছেন।

৭ জন মেয়র প্রার্থী হলেও তৈমূর আলম খন্দকার ও সেলিনা হায়াৎ আইভী ছাড়া অন্যদের নিয়ে তেমন একটা আলোচনা নেই। বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের প্রার্থী এবিএম সিরাজুল মামুন ও ইসলামী আন্দোলনের মুফতি মাসুম বিল্লাহ কিছুটা সাড়া ফেলেছেন। মাসুম বিল্লাহ এর আগেও নির্বাচনে অংশ নিয়ে ১০ হাজারের অধিক ভোট পান। তবে সিরাজুল মামুনের এটাই প্রথম নিবার্চন। শিক্ষক হিসেবে নগরীতে তাঁর বেশ জনপ্রিয়তা রয়েছে।

বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির প্রার্থী রাশেদ ফেরদৌস সোহেল মোল্লারও এটি দ্বিতীয় নির্বাচন। তবে গতবার কিছুটা সাড়া জাড়ালেও এবার তেমন একটা সাড়া নেই। নিজেকে আগাম মেয়র প্রার্থী ঘোষণা করে ঘটা করে সংবাদ সম্মেলন করে আলোচনায় উঠে এলেও স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী কামরুল ইসলাম বাবু রহস্যজনক নীরব হয়ে গেছেন।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায় সিসা হোস্ট