1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : Editor :
পরিবহন ধর্মঘটে অচলাবস্থা, নৌযান বন্ধের হুঁশিয়ারি - বাংলা টাইমস
মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ০২:২৬ পূর্বাহ্ন

পরিবহন ধর্মঘটে অচলাবস্থা, নৌযান বন্ধের হুঁশিয়ারি

নিজস্ব প্রতিবেদক 
  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ৬ নভেম্বর, ২০২১
  • ৪১ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

জ্বালানি তেলের ম্যল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে দ্বিতীয় দিনের মতো শনিবারও (৬ নভেম্বর) চলছে পরিবহন ধর্মঘট। এতে চরম বিপাকে পড়েছেন যাত্রীরা। হাজারো ভোগান্তি মাথায় নিয়ে এক স্থান থেকে অন্য স্থানে যাতায়াত করছেন যাত্রীরা। বিকল্প যানে নেয়া হচ্ছে অতিরিক্ত ভাড়া। এদিকে, বন্ধ রয়েছে ট্রাক ও পণ্যবাহী পরিবহনও।

 

বুধবার ডিজেলের নতুন দাম ঘোষণা করা হয়। এর পরদিন মালিকরা সাফ জানিয়ে দেন, অতিরিক্ত দামে ডিজেল কিনে পরিবহন চালানো সম্ভব নয়। সেক্ষেত্রে তারা পরিবহনের ভাড়া বাড়ানোর প্রস্তাব দেন। মালিকদের সঙ্গে একমত হন শ্রমিক নেতারা। পরিবহন সংশ্লিষ্টরা বলছেন, জ্বালানি তেলের দাম আগের অবস্থায় নেয়া না হলে এ কর্মসূচি চলবে।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি খন্দকার এনায়েতুল্লাহ বাংলা টাইমসকে বলেন, ধর্মঘটের কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। কোনো মালিক বাস না চালালে তাকে বাধ্য করা হবে না। কেউ চালালে তাকে বাধা দেওয়া হবে না। তবে তে‌লের দা‌মের সঙ্গে ভাড়া সমন্বয় না করা পর্যন্ত বেশির ভাগ মালিক বৈঠকে বাস চালাবেন না।

অন্যদিকে, জ্বালানি তেলের দাম বাড়ায় নৌযানের ভাড়া শতভাগ বাড়ানোর দাবি জানিয়েছে নৌযান মালিক সমিতি। অন্যথায় শনিবার (৬ নভেম্বর) থেকে সারা দেশে লঞ্চ চলাচল বন্ধ ঘোষণা দিয়েছেন অভ্যন্তরীন নৌ চলাচল সংস্থার সভাপতি মাহবুব উদ্দিন আহমদ।

শুক্রবার (৫ নভেম্বর) পুরানা পল্টনে লঞ্চ মালিক সমিতির কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এই ঘোষণা দেয় নৌযান মালিক সমিতি।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, বিআইডাব্লিওর কাছে ভাড়া বৃদ্ধিসহ বেশকিছু প্রস্তাবনা দেয় তারা। এই প্রস্তাবনা আগামীকালের (৬ নভেম্বরর) মধ্যেই মানার দাবিও জানায় তারা। অন্যথায় ধর্মঘট করে নৌযান বন্ধের কথা জানায় মালিক সমিতি।

এর আগে শুক্রবার (৫ নভেম্বর) বিকেলে মানিক মিয়া এভিনিউতে রাজধানী স্কুল মাঠে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের ইউনিট সম্মেলনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারের সাখে সামঞ্জস্য রেখেই ডিজেল আর কেরোসিনের দাম বাড়ানো হয়েছে। রোববারের বৈঠক থেকে এ বিষয়ে শান্তিপূর্ণ সমাধান আসতে পারে বলে জানান তিনি।

বুধবার জ্বালানি তেলের মূল্য ৬৫ থেকে বাড়িয়ে ৮০ টাকা নির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন দেয় বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়। একইসঙ্গে বাড়ানো হয় কেরোসিনের দাম। ডিজেলের দাম বাড়ানোর ঘোষণা ও তা কার্যকরের পর থেকেই পরিবহন খাতে এর প্রভাব পড়তে থাকে। প্রতিবাদ হিসেবে গাড়ির চাকা বন্ধের ঘোষণা দেন পরিবহন সংশ্লিষ্টরা।

বাংলাদেশ ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান মালিক সমিতির সভাপতি হাজী মো. তোফাজ্জল হোসেন মজুমদার বাংলা টাইমসকে বলেন, আমাদের সিদ্ধান্ত মেনে না নেওয়া পর্যন্ত আমাদের ধর্মঘট চলবে। আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারত যদি জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির পর ধর্মঘটের কারণে জনগণের কথা ভেবে তেলের দাম পূর্বমূল্যে নিয়ে যেতে পারে, তবে আমরা কেন পারব না!

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায় সিসা হোস্ট