1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : Editor :
ঝুঁকিপূর্ণ বৈদ্যুতিক পোল, দুর্ঘটনার আশঙ্কা - বাংলা টাইমস
শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ১২:৫৭ পূর্বাহ্ন

ঝুঁকিপূর্ণ বৈদ্যুতিক পোল, দুর্ঘটনার আশঙ্কা

ফেরদৌস সিহানুক শান্ত, চাঁপাইনবাবগঞ্জ
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ৩ নভেম্বর, ২০২১
  • ৩৯ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

দীর্ঘদিনের মরচে ধরা বৈদ্যুতিক পোল। তার উপর হেলে আছে একদিকে। একটি-দুটি নয় অন্তত ২০টির অধিক বৈদ্যুতিক পোল ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে আছে। এসব ঝুঁকিপূর্ণ বৈদ্যুতিক পোল ও তারের নিচে রয়েছে কৃষিজমি, পুকুর, রাস্তা ও বাগান। এতে আতঙ্কে রয়েছে কয়েকশ বিঘা ফসলি জমির কৃষকরা। তারা বলছেন, যেকোনো সময় ঘটতে পারে বড় দুর্ঘটনা।

 

জানা গেছে, চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর উপজেলার গোমস্তাপুর-রহনপুর সড়কের পাশে মরিচাডাঙ্গা নামক জায়গায় এমন ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে নর্দান ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানি (নেসকো) পোলগুলো। ধান, মাসকালাই, আমবাগান, বেগুন ও পেয়ারা চাষের জমির উপর দিয়ে ১১ কেভি ভোল্টের বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া আছে। মনে ভয়-আতঙ্ক নিয়ে কাজ করে এখানকার কৃষকরা। দীর্ঘ দিনের পুরনো মরচে ধরা পোল সরিয়ে নতুন সংযোগ স্থাপনের দাবি তাদের।

গোমস্তাপুর সদর ইউনিয়নের গোপালনগর গ্রামের মোখলেসুর রহমানের ছেলে কৃষক এবাদুর রহমান। মরিচাডাঙ্গায় বেগুনের জমি রয়েছে তার। সোমবার (১ অক্টোবর) জমিতে নিড়ানির কাজ করছিলেন এবাদুর। তিনি বলেন, বৈদ্যুতিক তারগুলো খুবই ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। এর কারণ দীর্ঘদিনের মরচে ধরা পোল ও সঠিক রক্ষণাবেক্ষণের অভাব। দীর্ঘদিন ধরে এভাবে পড়ে থাকলেও কোনো সংস্কার কাজ করা হচ্ছে না। এমনভাবে পশ্চিমদিকে কয়েকটি পোলগুলো হেলে আছে যে, যেকোন সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা।

পেয়ারা বাগানে কাজ করার শ্রমিক আমিন জানান, গত দুইদিন থেকে এখানে কাজ করছি। কাজের ফাঁকে ফাঁকে সবসময় মাথার উপর থাকা পোল ও তারের দিকে তাকাতে হচ্ছে। কখন, কি বিপদ হয়ে যায়। প্রায় ২০টি পোল এভাবেই হেলে আছে। টানা ও তারগুলো আর তেমন মজবুত নেই। তার মধ্যে ৩-৪টি পোল একেবারে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে।

স্থানীয় গরুর রাখাল কালাম বলেন, পোলগুলোর ও তারের নিচে গরু চরাতে ভয় লাগে।গরু যদি পোলে ধাক্কা দেয় বা স্পর্শ করে কোন দুর্ঘটনা ঘটে। কারন গরুর তো সেটা বোঝার সক্ষমতা নেই, যে পোলগুলো নড়বড়ে হয়ে আছে। তাই সবকিছু ভেবে নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে দূরে দূরে গরু চড়ায়।

জননিরাপত্তার কথা চিন্তা করে এগুলো দ্রুত সংস্কারের দাবি পোলের নিচে থাকা এক জমির মালিক আতাউর রহমানের। তিনি বলেন, নেসকোর বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে, তাদের অবহেলার কারণে অনেক প্রাণহানির ঘটনাও ঘটেছে। এমনভাবে পোলগুলো গত ৫-৬ মাসের বেশি সময় ধরে রয়েছে। তারপরেও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি তারা।

এ বিষয়ে গোমস্তাপুর নেসকো’র বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগের অতিরিক্ত নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আব্দুল হান্নান বাংলা টাইমসকে জানান, মরিচাডাঙ্গা লাইনের কাজ শুরু হয়েছে। সেখানে নতুন সংযোগ দেয়া হবে। দু-এক মাসের মধ্যেই পুরাতন সংযোগ উঠিয়ে নতুন সংযোগ স্থাপন করার কাজ সম্পন্ন হবে।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায় সিসা হোস্ট