1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : Editor :
বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২, ০২:০৩ পূর্বাহ্ন
নোটিশ ::
...Welcome To Our Website...

সৈকতে ভেসে আসছে একের পর এক মৃত ডলফিন

উত্তম কুমার হাওলাদার ,কলাপাড়া (পটুয়াখালী)
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৫০ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

বঙ্গোপসাগরে ডলফিন, শুশকের অস্তিত্ব হুমকির মুখে পড়েছে। একরে পর এক সৈকতে ভেসে আসছে মৃত ডলফিন। এবছর মোট ২২টি বিভিন্ন প্রজাতির মৃত ডলফিন সৈকতে ভেসে আসে। এসব প্রানীর মরদেহ সৈকত থেকে উদ্ধার হলেও উৎকন্ঠা বাড়ছে সচেতন মহলে।

 

সর্বশেষ বুধবার (২৯ সেপ্টেম্বর) সকাল ৯টার দিকে কুয়াকাটার সৈকতে আবারও ভেসে আসে ৭ ফুট দৈর্ঘ্যরে শুশক প্রজাতির একটি মৃত ডলফিন।

 

বিশেষজ্ঞদের ধারণা, গভীর সমুদ্রে নিরাপদ আবাসস্থল নিশ্চিতের অভাবে জেলেদের জালে আটকে পড়ে, ট্রলিং ফিসিং এর কারনে, জাহাজের সাথে ধাক্কা খেয়ে মারা পড়ছে এ বিরল প্রজাতির সামুদ্রিক সম্পদ।

 

জেলে ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বুধবার সকালে মৃত একটি ডলফিন সাগরের ঢেউয়ের তোড়ে ভেসে তীরে আসে। সৈকতের ঝাউবাগান পয়েন্টে এটিকে দেখতে পায় স্থানীয়রা। ডলফিনটির শরীরের মাথা ও লেজে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তবে তাদের ধারনা, এটি গভীর সমুদ্রে জেলেদের জালে কিংবা ট্রলারের সাথে আঘাত পেয়ে মারা যেতে পারে। খবর পেয়ে পরে ডলফিন রক্ষা কমিটির সদস্যরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তারা বিষয়টি মৎস্য বিভাগ ও বন বিভাগকে জানিয়েছেন।

 

ডলফিন রক্ষা কমিটির টিম লিডার রুমান ইমতিয়াজ তুষার বাংলা টাইমসকে বলেন, চলতি বছরের গত দুই মাসে ১৬টি ডলফিনের মৃত্যু হয়েছে। জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত মোট ২২টি মৃত ডলফিন কুয়াকাটার ১৮ কিলোমিটার সৈকতের বিভিন্ন স্থানে ভেসে এসেছে আটকা পরে। এগুলোকে স্থানীয় মাটি চাপা দেয়া হয়েছে। দিন দিন সামুদ্রিক বন্ধু প্রাণি ডলফিনের মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে। এতে সামুদ্রিক পরিবেশের চরম ক্ষতি হচ্ছে। তবে ডলফিনের মৃত্যুর সঠিক করান খুঁজে বের করে জীববৈচিত্র্য রক্ষা জরুরী হয়ে পরেছে। তা না হলে পরিবেশের বিপর্যয় ঘটতে পারে এমনটাই দাবি করেছেন তিনি।

 

ইউএসএআইডি ওয়ার্ল্ড ফিস বাংলাদেশে ইকোফিস-২ সহযোগী গবেষক সাগরিকা স্মৃতি বাংলা টাইমসে বলেন, ডলফিনগুলো মারা যাবার বিভিন্ন কারন থাকতে পারে। যেমন গভীর সমুদ্রে ট্রলিং ফিস ও ট্রলারের ধাক্কায় ও জেলেদের জালে প্যাচিয়ে বিভিন্ন প্রজাতীর ডলফিনের মৃত্যু হতে পারে। তবে এর আগে ভেসে আসা মৃত্যু ডলফিনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ও পরিবেশ অধিদপ্তরের ফরেনসিক ল্যাবে পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট পেলে ডলফিন মারা যাবার প্রকৃত কারন উদঘাটন করা যাবে।

 

পটুয়াখালী জেলা বন বিভাগের সহকারী বন সংরক্ষক তারিকুল ইসলাম বাংলা টাইমসকে জানান, ডলফিনের নমুনা সংগ্রহ শেষে মাটি চাপা দেয়া হয়।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায় সিসা হোস্ট