1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : Editor :
মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ১২:৪৭ অপরাহ্ন
নোটিশ ::
...Welcome To Our Website...

বৌদ্ধ বিহারে হামলার ৯ বছর, নিষ্পত্তি নেই ১৯ মামলার

কক্সবাজার প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৫৯ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

মানবসভ্যতার ইতিহাসে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দৃড় বন্ধন ছিল কক্সবাজারের রামু উপজেলার সকল সম্প্রদায়ের মানুষের মাঝে। কিন্তু ২০১২ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর মধ্যরাতে এক বিভিষিকাময় ঘটনার মাধ্যমে তা কিছুটা রুপ পাল্টায় । বুধবার ৯ বছর পূর্তি হচ্ছে কক্সবাজারের রামুর ঐতিহ্যবাহী বৌদ্ধ পল্লীতে ভয়াল সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনা।

 

মানুষ এখন ভুলতে বসেছে এ ভয়াল ঘটনা। ২০১২ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর রাতে ভয়াল এ হামলার ঘটনাটি ঘটেছিল। সেই রাতে রামুর ঐতিহ্যবাহী ১২টি বৌদ্ধ বিহার ও বৌদ্ধ পল্লীতে এক যোগে অগ্নিসংযোগ ও হামলা চালিয়েছিল দুর্বৃত্তের দল। পরের দিন একই ঘটনার জের ধরে উখিয়া এবং টেকনাফেও আরো ৭টি বৌদ্ধ বিহার পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল।

 

অনাকাক্সিক্ষত এমন সাম্প্রদায়িক হামলার দিবসটি উপলক্ষে উপাসনালয়ে বিশেষ প্রার্থনা করা হয়। এখনো নিষ্পত্তি হয়নি ১৯টি মামলার। এসব মামলায় মোট আসামির সংখ্যা ছিল ১৫ হাজার। তন্মধ্যে অভিযোগপত্রসমূহে আসামির সংখ্যা ৯৮৪ জন।

 

জানা যায়,পরে পুলিশ ব্যুারো অফ ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) কয়েকটি মামলা পুনঃতদন্ত করে আরো ৩৬ জন আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয়। মোট মামলার সংখ্যা ১৯টি। এর মধ্যে রামু থানায় দায়ের করা কেবল একটির আপস সূত্রে বিচার কাজ শেষ হওয়ায় মামলাটির চার্জশিটভুক্ত ৩৮ জন আসামির সবাই খালাস পেয়ে যান। অবশিষ্ট ১৮টি মামলা বর্তমানে বিচারাধীন রয়েছে।

 

মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া প্রসঙ্গে কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট ফরিদুল আলম বলেন, এসব মামলার মধ্যে একটির বাদীর সাক্ষী নেওয়া হয়েছে। বাদ বাকি সাক্ষী দের সমনের পরও আদালতে আসেন না। তাই এখন গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।

 

তিনি বলেন, বাস্তবে সাক্ষিরা স্বাক্ষ্য দিতে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছে। দীর্ঘ ৯ বছরেও মামলা নিষ্পত্তি না হওয়ায় হতাশ বৌদ্ধ স¤প্রদায়ের লোকজন। তারা এখন এক প্রকার ভুলতে বসেছেন সেই ভয়াল হামলার ঘটনার কথাও। আর এ সময়ের মধ্যে রামুর কয়েক শত বছরের পুরানো বৌদ্ধ সীমা বিহারের অধ্যক্ষ একুশে পদকপ্রাপ্ত প্রবীণ ভিক্ষু শতায়ূ সত্যপ্রিয় মহাথেরো পরলোক গমন করেছেন।

 

২০২০ সালের ৩ অক্টোবর পরলোকে পাড়ি জমান তিনি। সেই ভয়াল ২৯ সেপ্টেম্বর রাতের ভয়াল হামলা থেকে একটুর জন্য রক্ষা পেয়েছিলেন সর্বজন শ্রদ্ধেয় এই ধর্মীয় নেতা। তিনিও দেখে যেতে পারেননি হামলার ঘটনার বিচার।

 

রামুতে হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া বৌদ্ধ পল্লীর এক গৃহবধূ নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন,-‘বিচার কত চাইব? ঘটনার দীর্ঘদিনের কারণে এসব ভুলে গিয়েছি। কেবল বছর পূর্তির দিনটিতেই একটুখানি মনে পড়ে।

 

তিনি বলেন, এলাকায় মুসলিম, হিন্দু-বৌদ্ধ সবাই এক সঙ্গেই বসবাস করে আসছি। কারো সঙ্গে কোনো বিভেদ নেই। ২০১২ সালের সেই ২৯ সেপ্টেম্বর রাতের অনাকাক্সিক্ষত যে ঘটনায় বৌদ্ধ বিহার ও পল্লী পুড়ে ছাই হয়ে গেছে সেই ক্ষত কিছুতেই পোষাবারও নয়।

 

রামু সীমা বিহার পরিচালনা কমিটির একটি সুত্র জানান, আমাদের হাজার বছরের ইতিহাস-ঐতিহ্য এবং সম্পদ পুড়িয়েও যখন আমরা বিচার পাইনি তখন আর বিচার দাবি করছি না। এখন যে রকম সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রয়েছে সেটাই অব্যাহত থাকুক অনাদিকাল পর্যন্ত।

 

রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রণয় চাকমা বলেন, ‘ওই ঘটনার পর দীর্ঘ ৯ বছরে রামু উপজেলা প্রশাসন থেকে শুরু করে,রামু থানা পুলিশ,৩০ বিজিবি ব্যাটালিয়ন,এপিবিএন ও রামু ১০ পদাতিক ডিভিশন বাংলাদেশ সেনাবাহিনী রয়েছে।এতে করে রামুতে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি সুরক্ষায় সতর্ক নজর রয়েছে প্রশাসনের। উদ্ভুত যে কোনও পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রস্তুতি রয়েছে। যাতে করে আর কোনও অপ্রীতিকর সে ব্যাপারে আমরা সবাই সজাগ রয়েছি।

 

বলাবাহুল্য : রামু উপজেলার ফতেঁখারকুল ইউনিয়নের চেরাংঘাটা গ্রামের সুদত্ত বড়ুয়ার পুত্র উত্তম কুমার বড়ুয়া (২৮) নামের এক যুবকের ফেসবুকের একটি কথিত ছবি নিয়েই ঘটেছিল দেশের কলঙ্কিত এতবড় ঘটনাটি। প্রাপ্ত তথ্যমতে জানা যায়,২০১২ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর মধ্যরাত আনুমানিক ১২:৩০ মিনিটে রামুর ফকিরা বাজারের ফারুক কম্পিউটার টেলিকমের মালিক ফারুক এবং স্থানীয় শিবিরকর্মী মুক্তাদির বসে উত্তম বড়ুয়ার ফেসবুক থেকে পবিত্র কোরআন অবমাননার একটি ছবি বের করে। সেই ছবির কথা মুহূর্তেই ছড়িয়ে পড়ে চারিদিকে।

 

আর সেই ঘটনাকে কেন্দ্র করে তৎক্ষণাৎ প্রতিবাদ মিছিল বের হয় এবং পরবর্তীতে রামু বৌদ্ধ পল্লীতে হামলা ও অগ্নিসংযোগে ঘটনা ঘটে।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায় সিসা হোস্ট