1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : Editor :
বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২, ০৩:০৯ পূর্বাহ্ন
নোটিশ ::
...Welcome To Our Website...

সমুদ্র পথে ইয়াবার বড় চালান আটক (ভিডিও)

কক্সবাজার প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৪৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

কক্সবাজারের গভীর সমুদ্র এলাকায় অভিযান পরিচালনা আবারো ইয়াবার বড় চালান ৪ লাখ ৩০ হাজার পিচ ইয়াবা উদ্ধার ও একটি মাছ ধরার ট্রলার জব্দসহ ৫ জন মাদক কারবারীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১৫।

 

বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) রাত সাড়ে ১২টার দিকে এই অভিযান পরিচালনা করা হয়।

 

আটককৃতরা জানিয়েছে, স্থলপথ অনিরাপদ থাকায় তারা সমুদ্রপথে ইয়াবার চালানটি কক্সবাজার থেকে দেশের অন্যত্র পাচার করছিল এবং দীর্ঘদিন যাবৎ তারা এ ব্যবসার সাথে জড়িত ছিল বলে ব্যাব -১৫ এর কাছে স্বীকার করেছে।

আটকৃতরা হলেন- রশিদ উল্লাহ (৪২), পিতা- মৃত রফিক আহমেদ, সাং- গোবিন্দরকিল, থানা- পটিয়া, জেলা- চট্টগ্রাম, আমানত করিম (৩৮), পিতা- মৃত কালা মিয়া, সাং- লাইক্ষ্যার চর, ০৮ নং ওয়ার্ড, থানা- কর্ণফুলী, জেলা- চট্টগ্রাম; বর্তমানে জালিয়াবাটা ০৭ নং ওয়ার্ড, ইউপি- হ্নীলা, থানা- টেকনাফ, নাসির উদ্দিন (৩৬), পিতা- মৃত ছালেহ আহমেদ, সাং- পূর্ব বোয়ালখালী ০৬ নং ওয়ার্ড, থানা- ঈদগাও, মোঃ সাইফুল ইসলাম (২০), পিতা- জহির আলম, সাং- বিলিজাপাড়া ০৬ নং ওয়ার্ড, থানা- ঈদগাও, মোঃ ছৈয়দুর রহমান, পিতা- মৃত মুসলিম মিয়া, সাং- উত্তরপাড়া শাহপরীরদ্বীপ, টেকনাফ।

 

র‌্যাব- ১৫ সূত্রে জানা গেছে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, কতিপয় মাদক কারবারী কক্সবাজারের গভীর সমুদ্র এলাকায় কক্সবাজার-মহেশখালী চ্যানেল দিয়ে একটি মাছ ধরার ট্রলারের সাহায্যে ইয়াবার বড় চালান পাচার করছে সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-১৫ এর একটি চৌকস আভিযানিক দল । অভিযান পরিচালনা করে একটি মাছ ধরার ট্রলার আটক করে এবং ট্রলারে থাকা মাদক ও জড়িতদের আটক করে আইনশৃংখলা বাহিনী।

 

আটকের একপর্যায়ে আসামীদের হেফাজতে থাকা মাছ ধরার ট্রলারটি তল্লাশী করে বিশেষ কায়দায় লুকায়িত অবস্থায় ইয়াবা গুলো উদ্ধার করে এবং ট্রলারটি জব্দ করে বলে জানান।

র‌্যাব – ১৫ এর সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আবদুল্লাহ মোহাম্মদ শেখ সাদী এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানান, ২০০৪ সালের ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসের প্যারেডে অংশগ্রহণের মাধ্যমে র‌্যাব ফোর্সেস একটি এলিট ফোর্স তথা বিশেষায়িত বাহিনী হিসেবে যাত্রা শুরু করে। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে এ বাহিনী সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, মাদক উদ্ধার, অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার, মোবাইল কোর্ট পরিচালনা, অবৈধ অস্ত্রধারী এবং মানবপাচারকারী গ্রেফতার, ধর্ষণ, নারী ও শিশু নির্যাতন সংক্রান্তে গ্রেফতারসহ কিশোর গ্যাং বিরোধী অভিযান পরিচালনার মাধ্যমে দেশের সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি উন্নয়নে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখতে সক্ষম হয়েছে। আমরা মাদক নিমূলে কাজ করে যাচ্ছি। আটককৃতদের বিরোদ্ধে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

 

এর আগে কক্সবাজার থেকে দেশের সর্ববৃহৎ ইয়াবার চালান আটক করে গোয়েন্দা পুলিশ।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায় সিসা হোস্ট