1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : Editor :
বিশাল ব্যবধানে আওয়ামী লীগের হাবিবুর রহমান বিজয়ী - বাংলা টাইমস
মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ১১:০৬ অপরাহ্ন

বিশাল ব্যবধানে আওয়ামী লীগের হাবিবুর রহমান বিজয়ী

সিলেট ব্যুরো
  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ১০০ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

বিশৃঙ্খলা ছাড়াই সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচনের ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। শনিবার (৪ সেপ্টেম্বর) সকাল ৮ টা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হয়ে বিকাল ৪টায় শেষ হয়।

 

ভোট শেষে প্রাপ্ত ফলাফল অনুযায়ী সবগুলো কেন্দ্র মিলে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিব (নৌকা) পেয়েছেন ৮৯ হাজার ৭০৫ ভোট। আর তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় পার্টির আতিকুর রহমান আতিক (লাঙ্গল) পেয়েছেন ২৪ হাজার ৬০৪ ভোট। প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী এই দুই প্রার্থীর মধ্যে ভোটের ব্যবহার ৬৫ হাজার ১০১টি।

 

এর আগে সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচনে ১৪৯টি কেন্দ্রে শনিবার (৪ সেপ্টেম্বর) সকাল ৮টায় ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোটগ্রহণ শুরু হয়, যা চলে একটানা বিকেল ৪টা পর্যন্ত। প্রথমবারের মতো এ আসনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট গ্রহণ করা হয়েছে। তবে শুরুতে কয়েকটি কেন্দ্রে ভোটারদের মোটামুটি উপস্থিতি থাকলেও বেশিরভাগ কেন্দ্র প্রায় ফাঁকা দেখা গেছে। যেসব কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি ছিল সেগুলোতে পুরুষের চেয়ে নারী ভোটার বেশি ছিল।

 

এছাড়া কেন্দ্রে কেন্দ্রে দায়িত্ব পালন করেছেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পর্যাপ্ত সংখ্যক সদস্য। কিছু অভিযোগ ছাড়া কোথাও বড় ধরনের কোন বিশৃঙ্খলার খবর পাওয়া যায়নি।

 

সকালে দক্ষিণ সুরমার কামাল বাজার সরকারি প্রথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট দেন আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিব আর স্বতন্ত্র প্রার্থী শফি আহমেদ চৌধুরী দাউদিয়া গৌছ উদ্দিন সিনিয়র মাদ্রাসায় ভোট প্রদান করেছেন। জাতীয় পার্টির প্রার্থী আতিকুর রহমান আতিক সকাল ১০টায় রেবতি রেমন উচ্চ বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে ভোট দিতে গেলে ইভিএম মেশিনে আঙ্গুলের চাপ সংক্রান্ত সমস্যার কারণে ভোট দিতে পারেননি। পরে নির্বাচনের শেষ ম‚হুর্তে এসে ভোট দিতে পারেন জাতীয় পার্টির এই প্রার্থী।

 

নির্বাচনে ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ ভোট পড়েছে বলে ধারণা করছেন সিলেটের জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং কর্মকর্তা কাজী এমদাদুল ইসলাম। দুপুরে দক্ষিণ সুরমা উপজেলার মোগলাবাজারের রেবতী রমণ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র পরিদর্শনের এসে এ কথা জানান তিনি।

 

নির্বাচনে ভোটারদের কম উপস্থিতির ব্যাপারে জেলা প্রশাসক বলেন, আমরা অনুক‚ল পরিবেশ তৈরি করেছি। কোথাও কোনো গোলযোগ হয়নি। শান্তিপ‚র্ণ ভোট হয়েছে। তারপরও কেনো মানুষ ভোটে আসেনি তা বলতে পারবো না।

 

এদিকে, প্রথম বারের মতো এই আসনে ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) এর মাধ্যমে ভোট দিয়েছেন ভোটাররা। কেউ কেউ ইভিএমে ভোট দিতে পেরে খুশি হলেও এই পদ্ধতিতে ভোটাররা সুষ্ঠুভাবে ভোট প্রদান করতে পারছেন না বলে অভিযোগ করেছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী শফি আহমেদ চৌধুরী। তিনি বলেন, নারী ভোটাররা কেন্দ্রে গিয়ে ব্যালট খুঁজছেন। ইভিএম পদ্ধতি সম্পর্কে তারা কিছুই জানে না।

 

পুলিশ সুপার মো. ফরিদ উদ্দিন বলেন, নির্বাচনে খুবই শান্তিপ‚র্ণ ভাবে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। কোথাও কোনো ঝামেলা হয়নি।

 

এই উপ-নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগের হাবিবুর রহমান হাবিব, লাঙ্গল নিয়ে জাতীয় পার্টির মো. আতিকুর রহমান আতিক, মটরগাড়ি নিয়ে বিএনপি থেকে বহিস্কৃত সাবেক এমপি ও স্বতন্ত্র প্রার্থী শফি আহমদ চৌধুরী এবং বাংলাদেশ কংগ্রেসের জুনায়েদ মোহাম্মদ মিয়া ডাব প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায় সিসা হোস্ট